মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

প্রকল্প

আবর্তক /মূল (কৃষি)  প্রকল্প: বিআরডিবি ক্ষুদ্রঋণ , উন্নতবীজ , সুষম সার , সেচব্যবস্থা , চাষাবাদে  আধুনিকজ্ঞান  ও   নৈপুন্য  বিস্তার প্রভূতি ক্ষেত্রে  ১৯৬৩-৬৪ সন হতে সরকারি অর্থানুকুল্যে তদান্তিন কুমিল্লা জেলা সমন্বিত পল্লী উন্নয়ন কর্মসূচি (আইআরডিপি)এর আওতায় ক্ষুদ্র কৃষকদের ঋণ সরবরাহ করা হয়। ১৯৭৩-৭৪ সন হতে সোনালী ব্যংকের অর্থায়নে ইউসিসিএর  (একজন সভাপতি, একজন সহ-সভাপতি এবং ০৬ টি ব্লক হতে ০৬ জন পরিচালক , মোট ০৮ জন নিয়ে এর ব্যবস্থাপনা  কমিটি এবং ০৪ জন সরকারি প্রতিনিধি এর কার্যক্রম দেখাশুনা করেন।)      ঋন কার্যক্রম   শুরু হয় ।  পরবর্তীতে  ঋণ বিতরনের  জটিলতা  নিরসনে  সরকার ২০০৩ সনে আবর্তক  ঋণ তহবিল সৃষ্টি হয় ।এই ঋন ব্যবহারে রদ্বারা কর্ম-সংস্থানের  সুযোগ সষ্টি কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি এবং বাড়তি আয়দ্বারা গ্রামিন কৃষক পরিবার / সদস্য / সদস্যাদের  আত্ম-নির্ভরশীলতা  অর্জনে সহায়তা করাহয় । 

**উপজেলা  আবর্তক (কৃষি) ঋন  উপ-কমিটি:-
(১) সহকারী  পল্লী  উন্নয়ন  কর্মকর্তা (সাধারন),সাঁথিয়া - আহবায়ক
(২) পরিচালক ,ইউসিসিএলি ;(১জন মনোনীত  সদস্য ),সাঁথিয়া- সদস্য
(৩) জুনিয়র অফিসার (হি:) / হিসাবরক্ষক - সাঁথিয়া-সদস্য
(৪) এলাকা পরিদর্শক (সংশ্লিষ্ট) - সদস্য


** উপজেলা  আবর্তক (কৃষি) ঋণ অনুমোদন কমিটি :-
(১) উপজেলা পল্লী  উন্নয়ন  অফিসার -সাঁথিয়া- সভাপতি
(২) উপজেলা  কৃষি  কর্মকর্তা - সাঁথিয়া-সদস্য
(৩) কর্মকান্ড  সংশ্লিষ্ট উপজেলা  কর্মকর্তা - সাঁথিয়া-সদস্য
(৪) প্রধান পরিদর্শক, ইউসিসিএলিঃ - সাঁথিয়া-সদস্য
(৫) সহকারী  পল্লী উন্নয়ন  কর্মকর্তা -সাঁথিয়া-সদস্যসচিব

পল্লী প্রগতি প্রকল্প : দারিদ্র বিমোচনের লক্ষ্যে প্রকল্প ভুক্ত সদস্য/সদস্যাদের  নিয়ে  সংগঠন সৃষ্টি , সচেতনতাবৃদ্ধি ,  পেশাভিত্তিক দক্ষতা বৃদ্ধি , আয় এবং স্ব-কর্মসংস্থানের    সুযোগ  সৃষ্টির  মাধ্যমে তাদের নিজস্ব পুজির সহায়ক হিসেবে ঋণ সুবিধা প্রদান করে স্বাবলম্বী করা হয় ।

উপজেলা  পল্লী প্রগতি প্রকল্পের ঋণ বাছাই কমিটি-
 (১) উপজেলা পল্লী উন্নয়ন অফিসার –সাঁথিয়া -আহবায়ক
(২) সহকারী  পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা– সাঁথিয়া-সদস্যসচিব
(৩) গ্রাম সংগঠক ( সংশ্লিস্ট এলাকা )- সাঁথিয়া-সদস্য
(৪) জুনিয়র অফিসার (হি:) / হিসাবরক্ষক -সাঁথিয়া-সদস্য 

**  পল্লী  প্রগতি প্রকল্পের ঋণ মন্জুরী কমিটি:
(১) উপজেলা নির্বাহী অফিসার –সাঁথিয়া-সভাপতি
(২) চেয়ারম্যান , ইউসিসিএলি- সাঁথিয়া-সদস্য
(৩) ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা , সাঁথিয়া- সদস্য
(৪) চেয়ারম্যান, খেতুপাড়া  ইউনিয়ন পরিষদ , সাঁথিয়া- সদস্য
(৫) উপজেলা পল্লী উন্নয়ন অফিসার -সাঁথিয়া-সদস্য

** উপজেলা পল্লী প্রগতি প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি:
(১) উপজেলা  নির্বাহী অফিসার- সাঁথিয়া-সভাপতি
(২) চেয়ারম্যান, ইউসিসিএলি:- সাঁথিয়া-সদস্য
(৩) উপজেলা  কৃষি অফিসার - সাঁথিয়া-সদস্য
(৪) উপজেলা প্রাণী  সম্পদ কর্মকর্তা সাঁথিয়া-সদস্য
(৫) উপজেলা  মত্স্য কর্মকর্তা -সাঁথিয়া-সদস্য
(৬) উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সাঁথিয়া-সদস্য
(৭) উপজেলা  সমাজ সেবা কর্মকর্তা -সাঁথিয়া-সদস্য
(৮) ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা , পুলিশষ্টেশন–সাঁথিয়া-সদস্য
(৯) উপজেলা এডজ্যুটেন্ট আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা-সাঁথিয়া-সদস্য
(১০) চেয়ারম্যান , খেতুপারা  ইউনিয়ন পরিষদ- সাঁথিয়া-সদস্য
(১১) উপজেলা  পল্লী  উন্নয়ন অফিসার,সাঁথিয়া- সদস্যসচিব 

সদাবিক : পল্লী এলাকার বিত্ত হীন জনগোষ্টিকে ( পুরুষ ও মহিলা )   অনানুষ্ঠানিক  দল  ভূক্ত করে আত্মকর্মসংস্থান সৃষ্টি ,  জীবনযাত্রার  গুণগতমান উন্নয়ন , প্রশিক্ষন  ও  সঞ্চয়  জমার  মাধ্যমে আয় বর্দ্ধন মূলক কর্মকান্ড ভিত্তিক ঋণ কার্যক্রম পরিচালনা ,  মানব সম্পদ উন্নয়ন, পরিবেশ সংরক্ষন , মহিলাদের  সচেতনতা ও ক্ষমতায়নের  সুযোগ সৃষ্টি এ প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য।

 ৫অসচ্ছল  মুক্তিযোদ্দা  প্রকল্প : এ প্রকল্পের উদ্দেশ্য দুটিহলো :
০১)   অসচ্ছল মুক্তিযোদ্দা  পরিবারের অর্থনৈতিক  উন্নয়ন  ও  তঁাদের  আত্মনির্ভশীল  করে  তোলা  এবং এর মাধ্যমে তদেঁর দারিদ্র  লাঘব করা।
০২) অসচ্ছল  মুক্তিযোদ্দা  ও  তাঁদের   পোষ্যদের  বিভিন্ন  বৃত্তিমূল    প্রশিক্ষণের  মাধ্যমে  দক্ষতা বৃদ্ধি পূর্বক আয় সঞ্চারন ও আত্মকর্মসংস্থান মূলক  প্রকল্প গ্রহনে উদ্বুদ্ধ করা।

পল্লী জীবিকায়ন  প্রকল্প :  গ্রামীন  বিত্ত হীন  জনগোষ্টিকে  সমিতি  এবং পুজি গঠনের  মাধ্যমে  অর্থনৈতিক  উন্নয়ন  সাধন  করা  ।বর্তমান  পজীপ  এর  অধিনে  ১১২  টি  বিত্তহীন  পুরুষ  এবং মহিলা  সমিতি ( মহিলা সমিতি  ৭৯টি ) কে   ১২ জন কর্মকর্তা /কর্মচারীর  মাধ্যমে  সেবা  দিয়ে  যাচ্ছেন ।।  ১২  সদস্যবিশিষ্ট  একটি  ব্যবস্থাপনা  কমিটি  প্রাথমিক  সমিতি  প্রতিনিধি  হিসেবে  কাজ  করেন ।।  ১১২ টি সমিতিতে  জুন/১৩  পযনমোট  ১৫/৫০কোটি  টাকা  ঋণবিতরন  করা  হয়েছে  এবং আদায়েরহার ৯৭%। পল্লী  ভবনে অবস্থিত।

  একটি  বাড়ি একটি খামার   :  একটি  বাড়ি  একটি  খামার  বাংলাদেশ  সরকারের  মাননীয়  প্রধানমন্ত্রীর  একটি  অগ্রধীকার  ভিত্তিক প্রকল্প  ।  উক্ত  প্রকল্পের  মাধ্যমে  দরিদ্য দের  সংগঠিত  করে  পুজি  গঠন  এবং  সম্পদের  সুষ্ঠ  ব্যবহার  নিশ্চিত  করনের  মাধ্যমে  প্রতিটি  পরিবার  এবং গ্রামকে  টেকসই   আর্থিক  কার্যক্রমের  মাধ্যমে  জাতিয়  দারিদ্য  নিরসন     করা  হয় ।এবাএখা  প্রকল্পে  বর্তমান  ০৪  জন  কর্মকর্তা  কর্মচারি  ৩৬ টি  গ্রাম  উন্নয়ন  সমিতির   মাধ্যমে  ২১৬০  জন  উপকার  ভোগীদের  সেবায়  নিয়েজিত  আছেন ।   এপ্রকল্পের  আওতায়  জুন/১৩  পযন্ত  ৩৬টি  গ্রাম  উন্নয়ন  সমিতিতে  ২১৬০  জন  সদস্যর  মাঝে  ১৭৫  লক্ষ  টাকা  ঋণবিতরন  করা হয়েছে  এবং  আদায়ের  হার সন্তুষ্ট  জনক ।  এ কার্যালয়  উপজেলা  বিআরডিবি  ভবনের  নিচ  তলায়  অবস্থিত ।  বর্তমানে  সাঁথিয়া  উপজেলার  সকল  ইউনিয়ন ( ১০টি ) এ কার্যক্রম  শুরু করা হয়েছে।


 একটি  বাড়ি একটি খামার  গ্রাম নির্বাচন কমিটি :
 ০১। উপজেলা  নির্বাহী  কর্মকর্তা -সাঁথিয়া-সভাপতি
০২। সংশ্লিষ্ট  ইউপি  চেয়ারম্যান-সাঁথিয়া-সদস্য
০৩। উপজেলা  মুক্তিযোদ্দা  কমান্ডার –সাঁথিয়া- সদস্য
০৪। উপজেলা  সমাজসেবা কর্মকর্তা –সাঁথিয়া- সদস্য
০৫। উপজেলা  যুব উন্নয়ন  কর্মকর্তা –সাঁথিয়া-  সদস্য
০৬।  উপজেলা  কৃষি কর্মকর্তা –সাঁথিয়া- সদস্য
০৭।  উপজেলা  সমবায়  কর্মকর্তা –সাঁথিয়া- সদস্য
০৮ ।উপজেলা  পরিসংখ্যান  কর্মকর্তা –সাঁথিয়া- সদস্য
০৯। উপজেলা  পল্লী  উন্নয়ন  কর্মকর্তা – সাঁথিয়া-সদস্যসচিব

 সুবিধাভোগী  নির্বাচন কমিটি-

০১। উপজেলা পর্যায়ের একজন কর্মকর্তা (টাগ অফিসার) - সভাপতি
০২। সহকারী - পল্লীউন্নয়ন কর্মকর্তা-সচিব 
০৩। উপজেলা  সমন্বয় কারি - সদস্য
০৪। সংশ্লিষ্ট  ইউপি চেয়ারম্যান -সদস্য
০৫। পরিবার পরিকল্পনা  সহকারি - সদস্য
০৬। আনসার ভিডিপি  দলনেতা - সদস্য
০৭ ।সংশ্লিষ্ট ভিডিপি দলনেতা - সদস্য
০৮। সংশ্লিষ্ট গ্রাম পুলিশ - সদস্য
০৯। সংশ্লিষ্ট মাঠসংগঠক /  বিআরডিবি  মাঠকর্মী - সদস্যসচিব

অংশীদারিত্ব  মূলক  পল্লীউন্নয়ন  প্রকল্প-২  (পিআরডিপি-২ ):

 বাংলাদেশ  পল্লীউন্নয়ন  বোর্ড ও জাপান  আন্তর্জাতিক  সহ-যোগীসংস্থা ( জাইকা ) এর    সহায়তায় বিআরডিবি  উদ্ভাবিত পল্লী উন্নয়নের বিকল্প  পন্থা  যাহা ‘লিংকমডেল  ’(Link Model)  নামে সমাধিক  পরিচিত ।লিংক মডেলের  অনুসৃত কর্ম কৌশল  হচ্ছে – উপজেলা , ইউনিয়ন  ও  গ্রামের  মধ্যে রৈখিক ( Vertical) যোগাযোগ  এবং ইউনিয়ন  পরিষদ সদস্য্, গ্রাম কমিটির প্রতিনিধি , জাতি  গঠন  মুলক  বিভাগ  ওজন  প্রতিনিধি  গনের  মধ্যে   সমান্তরাল  (Horizontal)   যোগাযোগ  সৃষ্টি  ও  সমন্বয়    সহতথ্য্প্রবাহ  সৃষ্টি  ।  অংশীদারিত্ব   মুলক  পল্লী উন্নয়ন  প্রকল্প-২  এর  মাধ্যমে  সাঁথিয়া উপজেলার  ধোপাদহ  এবং  আর আতাইকুলা   ইউনিয়নে  ‘লিংকমডেল  ’ বাস্তবায়িত  হচ্ছে ।স্থানীয়  সরকার  শক্তিশালী  করন,   জনগনের  অংশ  গ্রহনের  মাধ্যমে  নিজস্ব  পরিকল্পনা  প্রনয়ন  ও  বাস্তবায়ন  ,    বিদ্যমান  সরকারী  /  বেসরকারি   সেবা  সরবরাহ  ও  সেবার  সর্বোত্তম  ব্যবহারের  মাধ্যমে  কমিউনিটি   ভুক্ত  সকল শ্রেনি / পেশারজন  গনের  সার্বিক  জীবনমানের  উন্নয়ন  নিশ্চিত  করা, এবং  ইউপি’র   জন্য্সরকার  প্রদত্ত  থোকবরাদ্দ   এবং  স্থানীয়  জন সাধারণের   নিজস্ব  আর্থিক   সহায়তায়  গ্রামীণ   ক্ষুদ্র  ক্ষুদ্র  অবকাঠামো  নির্মাণ  এই  প্রকল্পের  অন্যতম  কাজ ।

  অপ্রধান  শস্য  উৎপাদন , সংরক্ষণ , প্রক্রিয়াকরন  ও  বাজারজাত  করণ  কর্মসূচি:    অপ্রধান  শস্য যেমন  ডাল,   তৈলবীজ  ও  মসলা   জাতীয়  শস্যের  উৎপাদন   বৃদ্ধির  মাধ্যমে  দেশজ  চাহিদাপূরন  এবং  অপ্রধান   শস্যের   উৎপাদন  ও  উন্নয়নের  মাধ্যমে   দারিদ্র   নিরসন   এই কর্মসূচর   মূল  উদ্দেশ্য ।ক্ষুদ্র ,   প্রান্তিক   ও  বর্গাচাষি  কৃষকদের  অপ্রধান   শস্যের  উৎপাদন , সংরক্ষণ, ও  প্রক্রিয়া   করন  কাজেযুক্ত   সকলকে  সচতনতা  ও  দক্ষতা   উন্নয়ন  প্রশিক্ষণ প্রদান এবং প্রদর্শনী  খামার  স্থাপনের  মাধ্যমে এইকর্ম  সূচর  অন্যতম  কম্পোনেন্ট।


Share with :

Facebook Twitter